আলবানী রাহ: প্রণিত ‘রাসূল সা. এর নামাযের পদ্ধতি’ সাথে একটি অনন্য নামায ভিডিও টেউটোরিয়াল

Kaba Sharif
“অত:এব, (সালাতে) মসজিদুল হারামের দিকে মুখ ফিরাও।” (সূরা বাকারা: ১৪৪)

 রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, “তোমরা আমাকে যেভাবে সালাত আদায় করতে দেখেছ ঠিক সে ভাবে সালাত আদায় কর”।(সহীহ বুখারী)

 সুতরাং প্রতিটি মুসলমানের জন্য আবশ্যক হল রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর দেখানো পদ্ধতি অনুসারে নামায আদায় করা। আর সে সকল পদ্ধতি বুখারী, মুসলিম সহ অন্যান্য হাদীস গ্রন্থে বিভিন্ন স্থানে উল্লেখিত রয়েছে। কোন একটি বিশেষ হাদীসের কিতাবে সালাতের যাবতীয় বিষয় এত সুবিন্যস্তভাবে পাওয়া যায় না। তাছাড়া অনেক হাদীস রয়েছে যেগুলো হাদীস বিশারদদের গবেষণায় সহীহ (বিশুদ্ধ) হিসেবে গণ্য নয়।

যার পরিপ্রেক্ষিতে বর্তমান শতকের শ্রেষ্ঠতম মুহাদ্দিস, আরব বিশ্বসহ সমগ্র বিশ্বব্যাপী আলেমগণের বিস্ময়, হাদীস গবেষণায় যিনি যুগান্তকারী বিপ্লব সৃষ্টি করে গেছেন, বিরল প্রতিভাধর ব্যক্তিত্ব আল্লামা মুহাম্মাদ নাসিরুদ্দীন আলবানী (রাহ:) অসংখ্য গ্রন্থ রচনা করেছেন। তাঁর সে সব কালজয়ী গ্রন্থের মধ্যে ছোট্ট একটি বইয়ের নাম “সিফাতু সালাতিন্নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম (আরবী ভাষায় রচিত) যা বাংলা ভাষা সহ বিশ্বের অগণিত ভাষায় অনূদিত হয়েছে। বইটিতে তিনি নামাযের প্রতিটি বিষয় কুরআন ও হাদীস থেকে দলীল সহকারে অত্যন্ত নিপুনভাবে উপস্থাপন করেছেন। তাছাড়া বইয়ের শুরুতে তিনি অতিমূল্যবান একটি ভূমিক পেশ করেছেন যা সত্য সন্ধাণী মানুষকে দিক নির্দেশনা দিতে এবং সঠিক পথ খুঁজে নিতে সাহায্য করবে ইনশাআল্লাহ।

তাই বইটির ইন্টারনেট সংস্করণের একটি লিংক দেয়া হল। যেটি অনুবাদ করেছেন: এ. এন. এম সিরাজুল ইসলাম।( সাথে অনুবাদক কর্তৃক পবিত্রতা বিষয়ক একটি সংযোজন রয়েছে) ।

বইটি পড়তে এখানে ক্লিক করুন।

আর নামায ভিডিও টিউটোরিয়ালটি না দেখলেই নয়। কারণ, এখানে ওযু থেকে শুরু করে নামাযের বিভিন্ন পদ্ধতি অভিনয় করে দেখানো হয়েছে। আমাদের নামাযকে শুদ্ধ করতে এই ভিডিওটি বিরাট অবদান রাখবে এটা নি:সন্দেহে বলা যায়। অত:এব

নামায ভিডিও টিউটোরিয়ালটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন। (৬২ মিনিট) উপস্থাপনায়: বিশিষ্ট দাঈ, শাইখ মুহা: আব্দুল্লাহ আল কাফী

আল্লাহ তাআলা যেন আমাদেরকে দ্বীনে হকের উপর পরিচালিত করেন এবং একমাত্র তাঁর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর দেখানো পদ্ধতি অনুযায়ী নামায সহ প্রতিটি ইবাদত-বন্দেগী এবং জীবনের সকল কাজ বাস্তবায়ন করার তাওফীক দিন। আল্লাহ আমাদের সহায় হোন। আমীন।।

This Post Has 15 Comments

  1. thanks to you for such gorgious islamic activities

    1. আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। আনপাদের সুন্দর মতামত আমাদের পথ চলার পথে সাহস যোগাবে ইনশাআল্লাহ। জাযাকাল্লাহু খাইরান।

  2. Salam, bai jan. I can’t accept ur oju sistems, muhammed (sa). maked oju like that from where u find it ?

    1. য়ালাইকুমুস সালালাম ওয়া রাহমাতুল্লাহ।
      ভাই, ওযু করার পদ্ধতিটি কুরআন ও সহীহ হাদীস থেকে নেয়া। অনুগ্রহ পূবর্ক সহীহ বুখারী, সহীহ মুসিলম ইত্যাদি হাদীসের কিতাবের পবিত্রতা অধ্যায়গুেলা পড়ুন। সেখানে রাসূল সাল্লালাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের ওযুর পদ্ধতি পবিষ্কার ভাবে পাওয়া যাবে । তারপর যদি কোথাও ভুল দেখেন তবে নিদির্ষ্ট করে জানাবেন কোন ব্যাপারটি ভুল।
      আমার ব্লগে আসার জন্য আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। আল্লাহ আপনাকে ভাল রাখুন।

  3. হাদী ভাই বইটির পিডিএফ কপি দেয়ার ব্যবস্থা করুন । প্লিজ

  4. Im very pleased to all of you, because you send me sms & introduce with you, also I have very good chance to know about Islam more thing, can read Al- Hadis, at least I have chance to study about Islam. thanks everybody, May ALLAH help all of you.
    Monzur alam, athens,greece.

  5. আসসালামু আলাইকুম। বইটি বাংলায় বিভিন্ন প্রকাশণী থেকে বের হয়েছে। কিন্ত বিস্ময়কর ব্যাপার হল এদের কন্টেন্টে বড় ধরণের পার্থক্য আছে। এখানে দেয়া বইটি আর http://www.qss.org/articles/salah/toc.html ঠিকানার ইংরেজি বইটিও পুরোপুরি এক নয়। যেমন বাংলা বইটিতে “বুকে হাত রাখা” শিরোনামে হানাফীদের আমলকে বেদাত বলা হয়েছে। কিন্তু ইংরেজি বইটিতে এ শিরোনামে হানাফীদের আমল সম্পর্কে কোন আলোচনাই নেই। কোনটা আসল?

  6. আসসালামুআলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহে ওয়া বারাকাতুহু, হাদী ভাই মহিলাদের নামাযের ব্যাপারে একটি বই অথবা একটি লিখা আমাদের জন্যে পাঠান । কারণ আমাদের সমাজে মহিলাদের নামায হয় না বললেই চলে, যাহা সহীহ হাদীসের সম্পূর্ণ বিরোধী ।
    ধন্যবাদ।

    1. সম্মানিত ভাই, পুরুষ এবং মাহিলার নামাযের মধ্যে পদ্ধতিগতভাবে তেমন কোন পার্থক্য নাই। তবে কিছু পার্থক্য আছে যেগুলো হাদীসে বর্ণিত হয়েছে। যেমন, তাদের জন্য জামাতে নামায ফরজ নয়, তাদের জন্য জুমুআর নামায ফরজ নয়, মহিলাগণ মহিলাদের ইমামতি করলে ইমাম সামনের কাতারে যাবে না বরং সামানের কাতারে মধ্যস্থানে থাকবে, তারা জামআতে নামাযে ভুল করলে মুক্তাদিগণ ‘সুবহান আল্লাহ ‘ বলবে না। বরং এক হাতের তালু অন্য হাতের কব্জির উপর আঘাত করবে..ইত্যাদি। এগুলো ছাড়া নামাযে দাঁড়ানো, হাত বাঁধা, রুকু, সাজদাহ,, তাশাহ্হদ ইত্যাদি ক্ষেত্রে তাদের নামায হুবহু পুরুষদের মতই। এ সব ক্ষেত্রে পার্থক্য করা কোন সহীহ হাদীস দ্বারা প্রমাণিত নয়।
      সুতরাং সহীহ সুন্নাহ ভিত্তিক যে কোন নামায শিক্ষার বই মহিলাদেরকে পড়তে দিতে পারেন। অসংখ্য ধন্যবাদ।

  7. ভাল পোস্ট.

  8. আসসালামু আলাইকুম।যারা বইটি pdf আকারে ডাউনলোড করতে চান তারা নিচের লিঙ্কটি দেখুন।
    http://www.facebook.com/islamicEbook

Leave a Reply