যে ১০টি কারণে একজন মুসলিম ইসলাম থেকে বের হয়ে যায় বা মুরতাদ হয়ে যায়

যে ১০টি কারণে একজন mমুসলিম ইসলাম থেকে বের হয়ে যায় বা মুরতাদ হয়ে যায়:

সুপ্রিয় বন্ধুগণ, যে সমস্ত কারণে একজন মুসলমান ইসলাম থেকে বের হয়ে যায় বা মুরতাদ হয়ে যায় সেগুলো জানা খুব গুরুত্বপূর্ণ। সেগুলো হল দশটি। নিন্মে সেগুলো তুলে ধরা হল:
যথাঃ ১) ইবাদতের ক্ষেত্রে শির্‌ক করা। যেমন: আল্লাহ ছাড়া অন্য ওলী-আওলিয়া, মাযার-দরবার ইত্যাদির কাছে বিপদাপদে সাহায্য চাওয়া বা তাদের ওসীলায় কোন কিছু প্রার্থনা করা, মাযারে মান্নত করা, জিনের উদ্দেশ্যে মুরগী, ছাগল ইত্যাদি জবেহ করা ইত্যাদি।

 ২) কাফের-মুশরিকদের কুফরীর ব্যাপারে সন্দেহ পোষণ করা বা তাদেরকে কাফের-মুশরিক মনে না করা অথবা তাদেরকেও সঠিক পথের অনুসারী মনে করা।

 ৩) আল্লাহ তা’আলার নৈকট্য লাভের উদ্দেশ্যে কোন ‘মাধ্যম’ ধরে তার নিকট দু’আ করা বা তার নিকট সুপারিশ প্রার্থনা করা অথবা তার উপর পরকালে নাজাত পাওয়ার ভরসা করা। যেমন, উমুক ওলী একজন ‘কামেল পীর’ তার ওসীলায় চাইলে আল্লাহ আমাকে অবশ্যই দিবেন, অথবা তাঁকে খুশি করতে পারলে আল্লাহ তা’আলা আমার উপর খুশি হয়ে যাবেন ইত্যাদি।

৪) এ বিশ্বাস পোষণ করা যে, রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর আদর্শের চেয়ে অন্য কোন ব্যক্তির মতাদর্শ উত্তম বা রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর আনীত জীবন ব্যবস্থার চেয়ে অন্য কোন ধর্ম বা মতবাদ ভাল। যেমন, কেউ যদি বিশ্বাস করে যে, সমাজতন্ত্র, ধর্ম নিরপেক্ষতা, ডারউইনের মতবাদ ইত্যাদি ইসলামের চেয়ে ভাল তবে সে মুরতাদ হয়ে যাবে।

 ৫) রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর নির্দেশিত কোন বিষয়কে মনে মনে ঘৃণা করা যদিও সে তা পালন করে। যেমন, কেউ যদি দাঁড়ি, পর্দা ইত্যাদিকে মনে মনে অপছন্দ করে তবে সে মুসলমান থাকবেনা। কারণ, এগুলো ইসলামের আবশ্যপালণীয় নির্দেশ‍।

 ৬) ইসলামের কোন বিষয়কে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করা বা হেয় মনে করা।

 ৭) যাদু করা অথবা যাদু-তাবিজ ইত্যাদির মাধ্যমে স্বামী-স্ত্রী বা প্রেমিক-প্রেমিকার মনের মিলন কিংবা বিচ্ছেদ ঘটানো।

৮) মুসলমানদের বিরুদ্ধে অমুসলিমদেরকে সাহায্য-সহযোগিতা করা।

৯) এ বিশ্বাস করা যে, বিশেষ কিছু ব্যক্তি রয়েছে যারা রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর শরীয়ত মেনে চলতে বাধ্য নন।

 ১০) ইসলামের বিধিবিধান থেকে মুখ ফিরিয়ে চলা, ইসলাম শিক্ষা না করা এবং ইসলাম অনুযায়ী আমল না করা।

আল্লাহ তা’আলা যেন আমাদেরকে ইসলাম বিধ্বংশী বিষয়গুলো থেকে হেফাযত করেন। আমীন।

লেখক: আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল

Leave a Reply