কি ঘটেছিল কারবালায়? কারা হুসাইন (রা:) কে হত্যা করেছে?

কি ঘটেছিল কারবালায়? কারা হুসাইন (রা:) কে হত্যা করেছে?

(কারবালার ঘটনা সম্পর্কে একটি গবেষণাধর্মী প্রবন্ধ-যা অনেক ভুল ধারণা ভেঙ্গে দিবে ইনশাআল্লাহ)

প্রবন্ধটি ডাউনলোড করুন করুন পিডিএফ (৭৮৬ কেবি)

প্রবন্ধটি ডাউনলোড করুন-ওয়ার্ড (১১৫ কেবি)

✪✪✪✪✪✪✪✪✪✪✪✪✪✪

এই প্রবন্ধে যে সকল বিষয় আলোচিত হয়েছে সেগুলো হল:

১) ভূমিকা

২) কারবালার প্রান্তরে রাসূলের দৌহিত্র হুসাইন (রা:) নিহত হওয়ার প্রকৃত ঘটনা

৩) ফুরাত নদীর পানি পান করা থেকে বিরত রাখার কিচ্ছা

৪) কারবালার প্রান্তরে হুসাইনের সাথে আরও যারা নিহত হয়েছেন

৫) কারবালার ঘটনাকে কেন্দ্র করে যে সমস্ত ধারণা ঠিক নয়

৬) হুসাইন (রা.) বের হওয়া ন্যায় সংগত ছিল কি?

৭) কারবালার ঘটনাকে আমরা কিভাবে মূল্যায়ন করব?

৮) মৃত ব্যক্তির উপর বিলাপ করার ক্ষেত্রে শিয়া মাজহাবের মতামত

৯) আশুরার দিনে আমাদের করণীয় কী?

১০) শিয়াদের বর্ণনায় আশুরার রোজা

১১) আশুরার দিনে মাতম করার ভিত্তি কোথায়?

১২) হুসাইন (রা.) হত্যায় ইয়াজিদ কতটুকু দায়ী?

১৩) তাহলে কে হুসাইন (রা:)কে হত্যা করল?

১৪) হুসাইন (রা.) হত্যাকারী নির্ধারণে ইবনে উমর (রা:)এর অভিমত

১৫) হুসাইন (রা.) এর ভাষণই প্রমাণ করে যে ইয়াজিদ তাঁর হত্যার জন্য সরাসরি দায়ী নয়

১৬) আলী বিন হুসাইন (রা.) তাঁর পিতা হুসাইনকে হত্যার জন্য কুফা বাসীদেরকে দায়ী করেছেন?

১৭) হুসাইন রা. এর মাথা কোথায় গিয়েছিল?

১৮) যেমন কর্ম তেমন ফল

 ১৯) ইয়াজিদ সম্পর্কে একজন মুসলিমের ধারণা কেমন হওয়া উচিত

২০) উপসংহার

☞ পরবর্তী পৃষ্ঠায় যেতে নিচের পৃষ্ঠা নাম্বারে ক্লিক করুন ➥

 

This Post Has 35 Comments

  1. যাজাকাল্লাহু খাইরান। আমাদের সবার পড়া উচিত।

  2. মাশাআল্লাহ, সুন্দর ও সময়োপযোগী হয়েছে লেখাটি।

  3. jajakallaho khairan. ami mori kori sotto gotona sotik vabe janar jonno sokoler ei post pora dorkar.allah tala amader spbaike sotik din janar ebong manar towfik dan koron ammin.

  4. সময়োপযোগী পোস্টের জন্য ধন্যবাদ ।

  5. হুসাইন (রাঃ)-এর ছিন্ন মাথা নিয়ে উবাইদুল্লাহ বিন যিয়াদের নাড়াচাড়া করা এবং ইয়াজিদের কুস্তুন্তুনিয়া অভিযানে সেনাপতিত্ত করা, এই বিষয় দুটি বুখারী শরিফের হাদীস নম্বরসহ জানালে কৃতজ্ঞ থাকবো ।

    1. প্রিয় ভাই, প্রথম হাদীসটি সনদ সহ মূল ইবারত তুলে ধরা হল। সহীহ বুখারী, হাদীস নং ৩৭৪৮, (মাকতাবা শামেলা)
      3748 – حَدَّثَنِى مُحَمَّدُ بْنُ الْحُسَيْنِ بْنِ إِبْرَاهِيمَ قَالَ حَدَّثَنِى حُسَيْنُ بْنُ مُحَمَّدٍ حَدَّثَنَا جَرِيرٌ عَنْ مُحَمَّدٍ عَنْ أَنَسِ بْنِ مَالِكٍ – رضى الله عنه – أُتِىَ عُبَيْدُ اللَّهِ بْنُ زِيَادٍ بِرَأْسِ الْحُسَيْنِ – عَلَيْهِ السَّلاَمُ – فَجُعِلَ فِى طَسْتٍ ، فَجَعَلَ يَنْكُتُ ، وَقَالَ فِى حُسْنِهِ شَيْئًا . فَقَالَ أَنَسٌ كَانَ أَشْبَهَهُمْ بِرَسُولِ اللَّهِ – صلى الله عليه وسلم – ، وَكَانَ
      مَخْضُوبًا بِالْوَسْمَةِ . تحفة 1464 – 33/5

      কুস্তুনতুনিয়া বিজয় সম্পর্কে হাদীস। হাদীস নং 2924 (মাকতাবা শামেলা)
      قَالَ عُمَيْرٌ فَحَدَّثَتْنَا أُمُّ حَرَامٍ أَنَّهَا سَمِعَتِ النَّبِىَّ – صلى الله عليه وسلم – يَقُولُ « أَوَّلُ جَيْشٍ مِنْ أُمَّتِى يَغْزُونَ الْبَحْرَ قَدْ أَوْجَبُوا » . قَالَتْ أُمُّ حَرَامٍ قُلْتُ يَا رَسُولَ اللَّهِ أَنَا فِيهِمْ . قَالَ « أَنْتِ فِيهِمْ » . ثُمَّ قَالَ النَّبِىُّ – صلى الله عليه وسلم – « أَوَّلُ جَيْشٍ مِنْ أُمَّتِى يَغْزُونَ مَدِينَةَ قَيْصَرَ مَغْفُورٌ لَهُمْ » . فَقُلْتُ أَنَا فِيهِمْ 18308يَا رَسُولَ اللَّهِ . قَالَ « لاَ » . أطرافه 2789 ، 2800 ، 2878 ، 2895 ، 6283 ، 7002 – تحفة

      হাদীসের ব্যাখ্যায় পাওয়া যায় উক্ত যুদ্ধের প্রধান সেনাপতি ছিলেন ইয়াযিদ। (দেখুন ফাতহুল বারী)
      বিশেষ দ্র: উক্ত হাদীস নং দেয়া হল আমাদের নিকট ইসলামী গ্রন্থের সফটওয়্যার “মাকতাবা শামেলা” অনুযায়ী যা মুদ্রিত সহীহ বুখারীর হাদীসের নাম্বারের সাথে নাও মিলতে পারে।

  6. ZazakAllah khiran ,,,,

  7. যাকাল্লাহু খায়ের। অনেক ইতিহাস জানতে পারলাম।
    একটা জিজ্ঞাসা ছিলো ,
    আমার Office’র একজনের সাথে এ ব্যাপারে কথা বলতে চাইলে উনি বলল ইয়াজিদ নাকি সাতদিন মদিনা অবরোধ করে ছিলো এবং মক্কা মাদিনার অনেক খতি সাধন করেছিল পরে।
    এ ব্যাপারে বিস্তারিত একটু জানাবেন। বাংলাদেশে এ সম্পরকিত কোন বই থাকলে জানাবেন।

    1. মদীনাবাসীগণ ইয়াযিদের বাইয়াতকে প্রত্যাখ্যান করে, তার গর্ভনর ও আত্মীয় স্বজনকে মদীনা থেকে বের করে দেয় ফলে সে মদীনায় সেনাবাহিনী প্রেরণ করে এবং তিনি দিন পর্যন্ত সময় দেয় যাতে তারা তার আনুগত্য স্বীকার করে। কিন্তু মদীনাবাসীগণ তার সেনাবাহিনীর আহবান প্রত্যাখ্যান করে। অশেষে তারা মদীনাবাসীর উপর আক্রমণ পরিচালনা করে এবং অনেক জান মালের ক্ষতি সাধন করে। ইতিহাসে এটাকে বলা হয় হাররার ঘটনা। কিন্তু তিন দিন পর্যন্ত মদীনাকে হালাল ঘোষণা করে ১০০০ বা ৭০০ নারী ধর্ষণ করার যে কাহীনী বর্ণনা করা হয় বানোয়াট। তবে যুদ্ধের সময় কিছু ধর্ষণ হওয়াটা অস্বাভাবিক নয়। কারণ, তখনকার ঘটনা বলী নিয়ে লিখা সব চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দুটি গ্রন্থ তাবারী এবং বালাযুরীর লেখা ইতিহাসে এসব কথার কোনই আলোচনা আসে নি। অনুরূপভাবে নুআইম বিন হাম্মাদ এর লিখা আল ফিতান এবং আবু আমর আদ দানীর লিখা আল ফিতান গ্রন্থগুলোতে এর কোন ইশারা পাওয়া যায় না। অনুরূপভাবে তারীখেখে খালীফা এবং ইতিহাসের সব চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কিতাব ত্ববাকাতে ইবনে সাদেও এ ব্যাপারগুলো মোটেও আলোচিত হয় নি।

      তবে ইয়াযিদ বাহিনীর সাথে মদীনবাসীর যুদ্ধ হয়েছে এটা সহীহ সনদে প্রমাণিত হয়েছে।
      অনুরূপভাবে মক্কায় আব্দুল্লাহ ইবনে যুবাইর আলাদাভাবে মক্কাবাসীর নিকট তখন বাইআত নিয়েছিলেন এবং ইয়াযিদের বাইআত নিয়ে অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন তাই ইয়াযিদ বাহিনী মক্কাও অবরোধ করেছিল। কিন্তু হাজরে আসওয়াদ ভেঙ্গে ফেলেছিল এ জাতীয় তথ্য বিশুদ্ধ সূত্রে প্রমাণিত নয়।
      মোটকথা, ইয়াযিদের ক্ষমতা গ্রহণের সময় অনেক ফিতনা-ফাসাদ সংঘটিত হয়েছিল যা মুসলিম ইতিহাসে একটি অপ্রীতিকর অধ্যায়। কিন্তু শিয়া সম্প্রদায় যেভাবে অতিরিক্ত বাড়াবাড়ি ও বিভিন্ন বানোয়াট কিচ্ছা কাহিনী বলে মানুষের অনুভূতিকে জাগিয়ে ফিতনাকে আরও উসকিয়ে দেয় তা মোটেও কাম্য নয়। এ সকল ফিতনার ঘটনায় মুসলমানের উচিৎ ভারসাম্যপূর্ণ অবস্থান গ্রহণ করা। আল্লাহ সব চেয়ে ভাল জানেন। আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে ক্ষমা করুন।
      জাযাকাল্লাহ খাইরান।

  8. Here Eazid treated softly.But we know Eazid destroyed Madina,Macca,Majsid Nababi was used for living horses of Eazid Bahini.Kaba sharif was set under fire by Eazid and Hazre Aswad was broken.Women of Madina was raped(Number may be 700).How can we treat Eazid as not a bad man.

    1. জনাব সালাম নিবেন।
      আপনি যে বিষয়টি জানতে চেয়েছেন তা হচ্ছে, মদীনাবাসী যখন ইয়াজীদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ শুরু করলেন, তখন ইয়াজীদ মদীনা আক্রমণ করেছিল। এই ঘটনা ঐতিহাসিকভাবে প্রমাণিত। এটিকে ইসলামের ইতিহাসে واقعة الحرة বা হাররার ঘটনা বলা হয়। সে মদীনায় হামলা করে অনকে আনসারী সাহাবী ও মদীনাবাসীকে হত্যা করেছে এবং মদীনার সম্মান নষ্ট করেছে। এ কারণেই আলেমগণ তার কঠোর সমালোচনা করেছেন। এটি ইয়াজীদের অন্যতম খারাপ কাজ।
      তবে ৭০০ কুমারী মহিলা অপর বর্ণনায় ১০০০ মহিলা ইয়াজীদ বাহিনী কর্তৃক ধর্ষিত হয়ে সন্তান প্রসব করা, কয়েক দিন যাবৎ মসজিদে ননবীতে নামাযের জামাআত না হওয়া, তিন দিন পর্যন্ত মদীনায় সকল প্রকার অপকর্ম সংঘটিত করা এবং এ জাতীয় আরও যে সমস্ত কর্থা বর্ণনা করা হয়, তা সহীহ সূত্রে প্রমাণিত নয়। এগুলো শিয়াদের বির্ণিত মিথ্যা ও বানোয়াট অভিযোগের অন্তর্ভূক্ত, যা বিশ্বাস করা ঠিক নয়।
      আপনি সহজেই বুঝতে সক্ষম হবেন যে, কোন এলাকা আক্রান্ত হয়, তখন সবচেয়ে বেশীর নির্যাতনের শিকার হয় সেখানের মহিলাগণ।
      সে হিসেবে ইয়াজীদের কোন কোন সৈনিক কর্তৃক তখন মদীনায় দু/চারটি ধর্ষনের ঘটনা সংঘটিত হওয়ার সম্ভানা রয়েছে। কিন্তু এ ব্যাপারে যে বিরাট সংখ্যা উল্লেখ করা হয়, তা মিথ্যা ও বানোয়াট।
      বিস্তারিত দেখুন, হাফেজ ইবনে কাছীর রচিত, বেদায়া ওয়ান নেহায়া, (৮/২২৬) এবং ইমাম গাজ্জালী রচিত কাইদুশ শারীদ মিন আখবারি ইয়াজীদ, (৭-৫৯)।

    2. যুগে যুগে ইয়াজিদ মতাদর্শের মুসলিম নাম ধারী লোক থাকবে। না হলে রাসুলে পাক (সঃ) তার উম্মতের মধ্য ৭৩ দলের বেশীর ভাগই জাহান্নামি হবে বলে ভবিষ্যৎ বানি করতেন না। ঈমানদার ও বেইমান প্রশ্নের নিরব সমাধান হল কারবালা। প্রতিটা মুসলমান নিজেকে যাচাই করার জন্য ইমাম হুসেইন ও ইয়াজিদের প্রতি কার কেমন ভালবাসা ও ঘ্রিনা তা থেকে বুঝে যাবেন। কারন ইমাম হুসেইন হল ঈমান এবং ইয়াজিদ হল বেইমানের প্রতিক। আল্লাহ পাক রাব্বুল আলামিন কারবালার ঘটনাটি বিরবে রেখেছেন নিদর্শন স্বরূপ, অর্থাৎ পরবর্তী মুসলমান গন ইমাম হুসেইন ও ইয়াজিদ সম্পর্কে কে কেমন মানসিকতা রাখবে তা দেখার জন্য। আমি মোটেই আবাক হই না পাপি ইয়াজিদ সম্পর্কে আজকালকার মুসলমানদের নীরবতা এবং নরম ভাব দেখে কারন আল্লাহ পাক সবই জানতেন এবং জানেন, যা আমরা জানিনা।

  9. Eazid’s role and history and background is needed to be describe.I have some query about the writings where Imam Hussain got little treatment and Eazid is positively described.So please write the dtail history of Eazid and the doing of his forces in muslim land.

    1. মদীনাবাসীগণ ইয়াযিদের বাইয়াতকে প্রত্যাখ্যান করে, তার গর্ভনর ও আত্মীয় স্বজনকে মদীনা থেকে বের করে দেয় ফলে সে মদীনায় সেনাবাহিনী প্রেরণ করে এবং তিনি দিন পর্যন্ত সময় দেয় যাতে তারা তার আনুগত্য স্বীকার করে। কিন্তু মদীনাবাসীগণ তার সেনাবাহিনীর আহবান প্রত্যাখ্যান করে। অশেষে তারা মদীনাবাসীর উপর আক্রমণ পরিচালনা করে এবং অনেক জান মালের ক্ষতি সাধন করে। ইতিহাসে এটাকে বলা হয় হাররার ঘটনা। কিন্তু তিন দিন পর্যন্ত মদীনাকে হালাল ঘোষণা করে ১০০০ বা ৭০০ নারী ধর্ষণ করার যে কাহীনী বর্ণনা করা হয় তা বানোয়াট। তবে যুদ্ধের সময় কিছু ধর্ষণ হওয়াটা অস্বাভাবিক নয়। কারণ, তখনকার ঘটনাবলী নিয়ে লিখা সব চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দুটি গ্রন্থ তাবারী এবং বালাযুরীর লেখা ইতিহাসে এসব কথার কোনই আলোচনা আসে নি। অনুরূপভাবে নুআইম বিন হাম্মাদ এর লিখা আল ফিতান এবং আবু আমর আদ দানীর লিখা আল ফিতান গ্রন্থগুলোতেও এর কোন ইশারা পাওয়া যায় না। অনুরূপভাবে তারীখে খালীফা এবং ইতিহাসের সব চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কিতাব ত্ববাকাতে ইবনে সাদেও এ ব্যাপারগুলো মোটেও আলোচিত হয় নি।

      তবে ইয়াযিদ বাহিনীর সাথে মদীনবাসীর যুদ্ধ হয়েছে এটা সহীহ সনদে প্রমাণিত হয়েছে।
      অনুরূপভাবে মক্কায় আব্দুল্লাহ ইবনে যুবাইর আলাদাভাবে মক্কাবাসীর নিকট তখন বাইআত নিয়েছিলেন এবং ইয়াযিদের বাইআত নিয়ে অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন তাই ইয়াযিদ বাহিনী মক্কাও অবরোধ করেছিল। কিন্তু হাজরে আসওয়াদ ভেঙ্গে ফেলেছিল এ জাতীয় তথ্য বিশুদ্ধ সূত্রে প্রমাণিত নয়।
      মোটকথা, ইয়াযিদের ক্ষমতা গ্রহণের সময় অনেক ফিতনা-ফাসাদ সংঘটিত হয়েছিল যা মুসলিম ইতিহাসে একটি অপ্রীতিকর অধ্যায়। কিন্তু শিয়া সম্প্রদায় যেভাবে অতিরিক্ত বাড়াবাড়ি ও বিভিন্ন বানোয়াট কিচ্ছা কাহিনী বলে মানুষের অনুভূতিকে জাগিয়ে ফিতনাকে আরও উসকিয়ে দেয় তা মোটেও কাম্য নয়। এ সকল ফিতনার ঘটনায় মুসলমানের উচিৎ ভারসাম্যপূর্ণ অবস্থান গ্রহণ করা। আল্লাহ সব চেয়ে ভাল জানেন। আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে ক্ষমা করুন।

  10. Salam & zazak ALLAH khairan.
    mkzaman

  11. Taslim.
    The History should written/published without any partial influence of anything which is not reflected here. may the blessings be with you to write the real truith.
    regards

    1. Assalamualikum wr wb.The History should “be” ……you are missing somethimg important brother, the truth, May Allah give us the right knowledge-Amin

  12. ভালো লাগলো অনেক কিছু জানলাম ।

  13. rasul lekhar por sallallahu ‘alaihi wa sallam lekha uchit chilo.

    1. 100 % correct Adnan Bhai

  14. jajakallah

    1. পোস্টের নিচে দেখুন Print & PDF নামে একটা অপশন আছে। সেটার উপর ক্লিক করলে পুরা ফাইলটাকে অটোমেটিক পিডিএফ বানানো হবে। উক্ত পিডিএফ কপিটি আপনার কম্পিউটারে সেভ করুন।
      নিচের ছবিতে Print & PDF অপশনটা দেখানো হল:
      Capture

  15. জাযাকাল্লাহু খয়রান । পোষ্ট গুলো পড়ে ভাল লাগলো।

Leave a Reply